১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার

শিরোনাম
চরফ্যাশনে ২৮ হাজার পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা : নেই স্বাস্থ্যবিধি বালাই জলবায়ূ পরিবর্তনে সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বাড়লেও বাড়েনি চরফ্যাশনের বেড়ী বাধের উচ্চতা ঈদের আগেই শ্রমিকদের বেতন বোনাস পরিশোধ করে শ্রমিকদের সাথে সহনশীল আচরণ করুন – পীর সাহেব চরমোনাই কুয়াকাটার সৈকতে ভেসে এসেছে বিশাল এক মৃত ডলফিন গ্রাম পুলিশ হত্যাকান্ডের পর অসহায় পরিবারের পাশে নেই প্রশাসন পাল্টে যাচেছ চরফ্যাশনের গ্রামীণ জনপদ : সন্ধ্যা নামলেই সৌর বাতি সুগন্ধা নদীর ভাঙ্গন প্রতিরোধে চলমান প্রকল্প পরিদর্শন করলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বরিশালে দেড় হাজার কর্মহীনদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা সামগ্রী বিতরণ আমতলীর বারী মুগডাল-৬ জাপানে রপ্তানী বন্ধ

মেহেন্দিগঞ্জে সোনালী ব্যাংকের গ্রাহক সেবা প্রশ্নবিদ্ধ! অকেজো থাকছে সিসি ক্যামেরা!

আপডেট: ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

মনির দেওয়ান, মেহেন্দিগঞ্জ প্রতিনিধি ॥

মেহেন্দিগঞ্জে সোনালী ব্যাংক ম্যানেজারের অস্বচ্ছতার কারণে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে গ্রাহক সেবার মান। ব্যাংকটির মেহেন্দিগঞ্জ শাখার ক্যাশ কাউন্টারে প্রায়ই গ্রাহকদের সাথে বাগ্বিত-ায় ব্যস্ত থাকেন ক্যাশিয়ার আব্দুল কাইয়ুম। ক্যাশিয়ার আব্দুল কাইয়ুম এর ব্যবহার ও কর্মকা-ে অসন্তুষ্ট ব্যাংকে সেবা নিতে আসা গ্রাহকরা। ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গত ৩ ডিসেম্বর মঙ্গলবার বেলা আনুমানিক ১টার দিকে সোনালী ব্যাংক মেহেন্দিগঞ্জ শাখায় বিদেশ থেকে স্বামীর পাঠানো টাকা উত্তোলন করতে আসেন প্রবাসীর স্ত্রী মোর্শেদা বেগম। এসময় ক্যাশ কাউন্টার থেকে ক্যাশিয়ার আব্দুল কাউয়ুম পঞ্চাশ হাজার টাকার পিনআপ করা একটি বান্ডেল ও আলাদা একহাজার টাকাসহ মোট একান্ন হাজার টাকা গ্রাহক মোর্শেদা বেগমকে প্রদান করেন। মোর্শেদা বেগম তখন কাউন্টারের পাশেই দাঁড়িয়ে এসবি হিসাবে জমা দেওয়ার জন্য বান্ডেলের পিন খুলে ত্রিশ হাজার টাকা আলাদা করতে গিয়ে দেখেন বান্ডেলটিতে পাঁচশত টাকার ১১টি নোট কম। সাথে সাথে বিষয়টি তিনি ক্যাশিয়ার আব্দুল কাইয়ুমকে অবহিত করলে তিনিও গুনে দেখেন ১১টি পাঁচশত টাকার নোট (৫৫০০ টাকা) কম। প্রবাসীর স্ত্রী মোর্শেদা বেগম তাৎক্ষণিক ঘটনাটি ব্যাংক ম্যানেজার কেফায়েত উল্লাহকে অবহিত করলে ব্যাংক ম্যানেজার কেফায়েত উল্লাহ ঘটনাটি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করেন। বিষয়টি গ্রাহক মোর্শেদা বেগম বুঝতে পেরে স্থানীয় সাবেক কাউন্সিলর রফিকুল ইসলাম টেনু খন্দকারকে সাথে নিয়ে ব্যাংক ম্যানেজারের নিকট ব্যাংকে বসানো সিসি ক্যামেরায় ধারণকৃত ফুটেজ দেখানোর আবেদন করেন। মোর্শেদা বেগমের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংক ম্যানেজার কেফায়েত উল্লাহ কালক্ষেপণ শুরু করে কখনো বলেন ক্যামেরা নষ্ট, কখনো বলেন ক্যামেরায় ফুটেজ সেভ হয়না এবং পরবর্তীতে সময় চেয়ে বলেন সাত কর্মদিবসের মধ্যে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখাবেন। কিন্তু গত ১২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সাত কর্মদিবস শেষ হলেও ব্যাংকের ভিতরে ধারণ করা ভিডিও ফুটেজ দেখাতে পারেননি ওই কর্মকর্তা। ফলে প্রতিনিয়ত আর্থিক ক্ষতিসহ হয়রানির শিকার হচ্ছেন ওই বাংকে সেবা নিতে আসা গ্রাহকরা। বিষয়টি নিয়ে গ্রাহকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সিসি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ যদি সংরক্ষণে না থাকে তাহলে এই সিসি ক্যামেরা কাদের স্বার্থে? এ বিষয়ে সোনালী ব্যাংক মেহেন্দিগঞ্জ শাখার ম্যানেজার মোঃ কেফায়েত উল্লাহ্’র নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, সিসি ক্যামেরায় কোন ভিডিও সেভ হয়নি। ঘটনাটি ক্যামেরা প্রতিষ্ঠানে আবেদন করে জানিয়েছি, তারা ঢাকা থেকে আসলে বিষয়টি দেখা হবে বলে জানান তিনি। নাম না প্রকাশের শর্তে ব্যাংকের এক গ্রাহক বলেন, কর্মকর্তাদের অসৎ উদ্দেশ্যেই অকেজো থাকছে সিসি ক্যামেরা। নোট কেলেংকারি থেকে শুরু করে এই ক্যাশ কাউন্টারে প্রায়ই চলে এধরনের কর্মকা-। তবে বেশীর ভাগই হয়রানির শিকার হন মহিলা গ্রাহকরা। গ্রাহকদের দাবি বিষয়টির প্রতি এখনই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ দৃষ্টি না দিলে দু’একজনের বিতর্কিত কর্মকা-ের জন্য ব্যাংকের অর্জিত সুনাম ক্ষুন্ন হবে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
 
Website Design and Developed By Engineer BD Network