১২ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

শিরোনাম
চরফ্যাশনে ২৮ হাজার পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা : নেই স্বাস্থ্যবিধি বালাই জলবায়ূ পরিবর্তনে সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বাড়লেও বাড়েনি চরফ্যাশনের বেড়ী বাধের উচ্চতা ঈদের আগেই শ্রমিকদের বেতন বোনাস পরিশোধ করে শ্রমিকদের সাথে সহনশীল আচরণ করুন – পীর সাহেব চরমোনাই কুয়াকাটার সৈকতে ভেসে এসেছে বিশাল এক মৃত ডলফিন গ্রাম পুলিশ হত্যাকান্ডের পর অসহায় পরিবারের পাশে নেই প্রশাসন পাল্টে যাচেছ চরফ্যাশনের গ্রামীণ জনপদ : সন্ধ্যা নামলেই সৌর বাতি সুগন্ধা নদীর ভাঙ্গন প্রতিরোধে চলমান প্রকল্প পরিদর্শন করলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বরিশালে দেড় হাজার কর্মহীনদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা সামগ্রী বিতরণ আমতলীর বারী মুগডাল-৬ জাপানে রপ্তানী বন্ধ

বিদায় ২০১৯

আপডেট: ডিসেম্বর ৩১, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বিদায় ২০১৯। আজকের সূর্যাস্ত আরেকটি খ্রিস্টীয় বছরের সমাপ্তির ডাক দেবে। আর আগামীকালের ভোরের সূর্য পৃথিবীর বুকে নিয়ে আসবে আরেকটি নতুন বছর। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বলেছিলেন, ‘ফোটে যে ফুল আঁধার রাতে/ঝরে ধুলায় ভোর বেলাতে/আমায় তারা ডাকে সাথে- আয় রে আয়।/সজল করুণ নয়ন তোলো, দাও বিদায়…।’ সব বিদায়ের সঙ্গেই লুকিয়ে আছে আনন্দ-বেদনার কাব্য। বছর বিদায়ের ক্ষণেও সেই একই কথা।

আজ রাত ১২টা পেরোলেই শুরু হবে নতুন খ্রিস্টীয় বছর ২০২০। আর ভোরবেলাতেই উদয় হবে নতুন বছরের নতুন সূর্য। আমাদের জীবনের সব কর্মকাণ্ড ইংরেজি সালের গণনায় হয়, তাই খ্রিস্টীয় বছর অনেক গুরুত্ববাহী। সেই বিবেচনায় বিদায়ী বছরটা কেমন গেল তার হিসাব কষবেন অনেকেই।

ভালো, মন্দ, আনন্দ, বেদনার স্মৃতিগুলো আরও একবার রোমন্থন করবেন। একইভাবে জীবনের সব ধরনের নেতিবাচক বিষয়গুলোকে দূরে ঠেলে সুন্দর আগামীর প্রত্যাশায় নতুন করে পথচলার প্রত্যয় ব্যক্ত করবেন। ২০১৯ সালের সর্বশেষ দিন আজ। যার যার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা, ভাবনায় বছরটি নানাভাবে মূল্যায়িত হবে। তবে আমাদের জাতীয় জীবনে বিদায়ী বছরটি ছিল অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ২০১৯ বেশ ঘটনাবহুল একটি বছর। নানা ক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ এসেছে, ঘটেছে উত্থান-পতনের ঘটনা। তারপরও এগিয়ে যাচ্ছি আমরা। শেষের ঘটনা দিয়ে শুরু করলে বলতে হয়- আরও একবার ডাক দিচ্ছে নির্বাচন। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে ঢাকা। তাই এ নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা চলছে সর্বত্র।

বিদায়ী বছরজুড়েই আলোচনায় ছিল বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি। নানাভাবে আলোচিত হলেও তার মুক্তি মেলেনি। বিএনপি শুরু থেকেই এটাকে বলে এসেছে সরকারের কূটকৌশল আর আওয়ামী লীগ সব সময়ই বলে এসেছে এটা বিচারিক বিষয়। ভৌগোলিক রাজনীতিতে ভারত উপমহাদেশ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু ভারত সরকারের নতুন নাগরিকত্ব আইন সেখানে জনরোষের জন্ম দিয়েছে। যার আঁচ এসেছে তার আশপাশের দেশেও। রোহিঙ্গা গণহত্যায় মিয়ানমার সরকার আন্তর্জাতিকভাবে ধিকৃত হয়েছে।

আর বিশ্ববাসী দেখেছে কিভাবে আদালতে অং সান সু চি মিথ্যার অবতারণা করেছে। বছরজুড়ে দেশে আলোচনায় ছিল ডেঙ্গু। ডেঙ্গুর প্রকোপে মারা গেছে অনেক মানুষ। উৎকণ্ঠায় কেটেছে দেশবাসীর সময়। ফেনীতে ঘটে যাওয়া নুসরাত জাহান রাফি হত্যাকাণ্ড ও বুয়েটের আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ড পুরো দেশকে নাড়িয়ে দিয়ে গেছে।

এছাড়া সারা বছরই নেতিবাচক অবস্থার কারণে বারবার সংবাদ শিরোনাম হয়েছে শেয়ারবাজার। ঘটনাবহুল ২০১৯ চলে যাচ্ছে। আরেকটি নতুন বছর আসছে জাতির জীবনে। সবার প্রত্যাশা নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে যে যাত্রা শুরু করেছে তা অব্যাহত থাকবে নতুন বছরেও। নানা বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে ২০২০ সালে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে তার লক্ষ্যে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
 
Website Design and Developed By Engineer BD Network