১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার

শিরোনাম
চরফ্যাশনে ২৮ হাজার পরিবার পাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা : নেই স্বাস্থ্যবিধি বালাই জলবায়ূ পরিবর্তনে সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বাড়লেও বাড়েনি চরফ্যাশনের বেড়ী বাধের উচ্চতা ঈদের আগেই শ্রমিকদের বেতন বোনাস পরিশোধ করে শ্রমিকদের সাথে সহনশীল আচরণ করুন – পীর সাহেব চরমোনাই কুয়াকাটার সৈকতে ভেসে এসেছে বিশাল এক মৃত ডলফিন গ্রাম পুলিশ হত্যাকান্ডের পর অসহায় পরিবারের পাশে নেই প্রশাসন পাল্টে যাচেছ চরফ্যাশনের গ্রামীণ জনপদ : সন্ধ্যা নামলেই সৌর বাতি সুগন্ধা নদীর ভাঙ্গন প্রতিরোধে চলমান প্রকল্প পরিদর্শন করলেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী বরিশালে দেড় হাজার কর্মহীনদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা সামগ্রী বিতরণ আমতলীর বারী মুগডাল-৬ জাপানে রপ্তানী বন্ধ

পর্যটন এলাকার পরিবেশ দূষণ থেকে বাচাঁতে ‘ওয়াইল্ড ট্যুরিজম বাংলাদেশ’ এর অভিনব উদ্যোগ

আপডেট: জানুয়ারি ৫, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

পর্যটন এলাকার পরিবেশ দূষণ বন্ধ ও জনগণের মাঝে পরিবেশ সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে ট্যুরিস্টদের ব্যবহৃত প্লাস্টিক জমা দিলে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ ফেরত দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাণ-প্রকৃতিভিত্তিক ট্যুরিস্ট গ্রুপ ‘ওয়াইল্ড ট্যুরিজম বাংলাদেশ’। শুক্রবার বিকেলে ওয়াইল্ড ট্যুরিজম বাংলাদেশের পরিচালনা পর্ষদের মিটিংয়ে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ট্যুরে থাকাকালীন প্লাস্টিকের একটি মোড়কজাত প্যাকেট জমা দিলে ১ টাকা, দেড় লিটার পর্যন্ত পানির বোতল ২টাকা, দুই লিটারের পানির বোতল ৩টাকা এবং ৫ লিটারের পানির বোতলে ৫টাকা ফেরত দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

ওয়াইল্ড ট্যুরিজম বাংলাদেশের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক কেফায়েত শাকিল বলেন, বাংলাদেশ পর্যটন সম্ভাবনায় পরিপূর্ণ। আমরা দেখছি অসাবধানতার কারণে পর্যটকদের ফেলা বিভিন্ন উচ্ছিষ্টে পর্যটন কেন্দ্রগুলোর সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে। প্লাস্টিকে চাপা পড়ে বিলীন হচ্ছে সেন্টমার্টিনের কোরাল। তিনি বলেন, একইভাবে নষ্ট হচ্ছে সমুদ্র ও পাহাড়ের জীববৈচিত্রও। যার ফলে পর্যটন ও পরিবেশ একে অপরের বিরোধী হয়ে দাঁড়াচ্ছে। অথচ পরিবেশ ও প্রকৃতি রক্ষার মাধ্যমে দেশের পর্যটন সম্ভাবনাকে আরো সম্ভাবনাময় করা সুযোগ রয়েছে। তাই আমরা চাই পর্যটকদের মাঝে পরিবেশ সচেতনতার বার্তা পৌঁছে দিয়ে পর্যটন কেন্দ্রগুলোসহ সারা দেশের পরিবেশ রক্ষায় জনগণকে সম্পৃক্ত করতে।

তিনি বলেন, ইতিহাস ঘাটলে দেখা যায় পর্যটকের হাত ধরে জন্ম হয়েছে বিশ্ব সংস্কৃতির। পর্যটন কেন্দ্র এমন একটি স্থান যেখানে পুরো দেশের সচেতন ও শিক্ষিত মানুষগুলোর মিলনমেলা বসে। তাই আমরা মনে করি পর্যটকদের মধ্যে যদি প্রাণ ও প্রকৃতি রক্ষায় সচেতনতাবোধ জাগ্রত করা যায় তার ফল ছড়িয়ে পড়বে সারা দেশে। প্রতিটি পর্যটকের হাত ধরে পরিবেশ সচেতনতার বার্তা পৌঁছে যাবে সবখানে।

ওয়াইল্ড ট্যুরিজম বাংলাদেশের পরিচালক (প্রশাসন) মাঈন উদ্দিন আরিফ বলেন, শুধু প্রকৃতি রক্ষা নয় ন্যুন্যতম খরচে পর্যটকদের সর্বোচ্চ সেবা ও নিরাপত্তা নিশ্চিতে ওয়াইর্ড ট্যুরিজম বাংলাদেশ বদ্ধ পরিকর। আমরা আমাদের ট্যুরিস্টদের অন্যদের চেয়ে একটু ব্যাতিক্রম বিনোদন দিতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো এবং ট্যুরিজমের পাশাপাশি পৌঁছে দেব প্রকৃতি সংরক্ষণের মেসেজ।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
 
Website Design and Developed By Engineer BD Network