১১ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার

পিঠা-পুলির ঘ্রান ও সুর-ছন্দে বরিশালে শেষ হল পৌষমেলা

আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশাল ব্যুরো
পিঠা-পুলির ঘ্রান ও সুর-ছন্দে বরিশালে শেষ হল ৩ দিন ব্যাপী পৌষমেলা।

‘পৌষ তোদের ডাক দিয়েছে আয়রে চলে আয় আয়…’ এই শ্লোগানে নগরীর জগদিশ সারস্বত বালিকা স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে এই মেলার আয়োজন করেছে জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদ।

পিঠা পুলি ও বিভিন্ন পণ্যের সম্ভারে জমে উঠেছে মেলা প্রাঙ্গন। পাশাপাশি চলছে বরিশালের বিভিন্ন সংগঠনের নাচ, গান, আবৃত্তি ও নাটক। তাই নর-নারীদের পদচারণায় মুখরিত সারস্বত স্কুল মাঠ।

পৌঁষ মেলায় পিঠা-পুলি উৎসব, গ্রামবাংলার বিলুপ্ত প্রায় সংস্কৃতি এবং হস্তশিল্পের সমাহার ঘটানো হয়। তিন দিনব্যাপী মেলায় গ্রাম বাংলার হারিয়ে যাওয়া পল্লীগীতি, ভাটিয়ালী, লালনগীতি, রবীন্দ্র সঙ্গীত, নজরুলগীতিসহ আবহমান বাংলার সকল
সাংস্কৃতিক আয়োজন রয়েছে।

মেলা প্রাঙ্গণে ২৫টি স্টলে দেশীয় বিভিন্ন ধরনের পিঠা ও হস্তশিল্প ও পণ্য রয়েছে।

পরিষদের সভাপতি কাজল ঘোষ জানান, দেশের নতুন প্রজন্ম গ্রামীণ ঐতিহ্য পৌষমেলা, পিঠা-পুলির সঙ্গে পরিচিত নয়। বাঙালি সংস্কৃতির ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনাই মেলার একমাত্র উদ্দেশ্য।

শেষ দিনের অনুষ্ঠান মালায় প্রধান অতিথি ছিলেন বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী। পরিষদের সাবেক সভাপতি
এ্যাড. নজরুল ইসলাম চুন্নুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বরিশাল জেলা প্রশাসক এসএম অজিয়র রহমান, কবি নজমুল হোসেন আকাশ ও জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা
পংকজ রায় চৌধুরী।

মেলায় ঘুরতে আসা শারমিন লুনা বলেন, ৩য় বারের মত এ মেলা বরিশালে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সকলের বিনোদনের একটি জায়গা এখন এই স্কুল মাঠ। এখানে এসে একটি গ্রামীণ ঐতিহ্যবাহি পরিবেশের সাথে পরিচয় হওয়া যায়।

তাছাড়া অনেক পরিচিতজনের সাথে দেখা হয়। নানা রকম পিঠা খেয়ে আর মেলায়ঘুরে সময় কেটে যাচ্ছে আনন্দে।

কলেজ ছাত্রী সনি সাবরিন বললেন, চমৎকার উদ্যোগ। আশা করবো প্রতি বছর পৌষ মেলার আয়োজন করা হোক। ##

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
   
Website Design and Developed By Engineer BD Network