৮ই আগস্ট, ২০২০ ইং, শনিবার

 

রোম দূতাবাসের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ,রাষ্ট্রদূতের দাবী ভিত্তিহীন

আপডেট: জুলাই ২৮, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

ইতালী প্রতিনিধিঃ
ইতালিস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এনে রোমস্থ স্থায়ী দূতাবাসের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছে প্রবাসীরা। দালাল নির্মুল ও দূতাবাস দুর্নীতি মুক্তকরণ কমিটির উদ্যোগে এ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়।চার দশকে ইতালীতে বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে এটাই প্রথম কোন আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ কর্মসূচি। কর্মসূচিতে ১১ দফা দাবি নিয়ে অর্ধ শতকের বেশি প্রবাসী দূতাবাসের সামনে অবস্থান নেয়।দূতাবাসে দুর্নীতি ও দালাল মুক্তকরনের প্রধান উদ্যোক্তা ইতালী অাওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এমএ রব মিন্টু এ সময় বলেন, অামাদের অান্দোলন দূতাবাসের বিরুদ্ধে নয়, দূতাবাসের অসৎ, দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে, দালালদের বিরুদ্ধে। স্থানীয় এক অাওয়ামী লীগ নেতার অাত্মীয়ের যোগসাজসে দূতাবাস দূর্নীতির অাখরায় পরিনত হয়েছে। প্রবাসীরা চরমভাবে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে এসব অসাধু কর্মকর্তাদের হয়রানিতে। দূতাবাসে প্রবাসিদের ন্যায্য সেবা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত অান্দোলন অব্যাহত থাকবে। তবে অবস্থান কর্মসূচি এবং দূতাবাসে দুর্নীতির অভিযোগ সম্পর্কে রাষ্ট্রদূত আবদুস সোবহান সিকদার দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, দুর্নীতির অভিযোগ ঢালাওভাবে করলেই হয়না, সুনির্দিষ্টভাবে লিখিতভাবে জানাতে হয়। দালাল বললেও স্পষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। কেবল বলছে, দালালী বন্ধ করতে হবে।, কে করছে দালালী, তাকে বলে না কেন? এর সাথে দূতাবাসের কি সম্পর্ক? রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, ইতালী আওয়ামী লীগের আসন্ন সম্মেলনকে সামনে রেখে দলীয় বিবাদ শুনেছি, আর সেটাকে নিয়ে আসছে দূতাবাসের ওপর। দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রবাসীদের সেবা নিয়ে সার্বক্ষনিক কাজ করছে। গত দেড় মাসে ১০ হাজারের বেশি সেবাপ্রাথীকে সেবা প্রদান করেছে দূতাবাস। একজন অনিয়মিত প্রবাসীও যেন বৈধতার আবেদন থেকে বঞ্চিত না হয়, সে লক্ষ্যে দূতাবাস বন্ধের দিন শনিবারও দূতাবাস খোলা রেখে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। দালাল নির্মুল ও দূতাবাস দূর্নীতি মুক্তকরন কমিটির আহ্বায়ক অাফতাব বেপারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অবস্থান কর্মসূচিতে অন্যান্যের মধ্যে কে এম লোকমান হেসেন,মাহাতাব হোসেন, অাব্দুর রব ফকির, অালমগীর হোসেন, মাহাবুব প্রধানসহ অারও অনেকে বক্তব্য রাখেন। কর্মসূচীতে বক্তারা আরও বলেন, দূতাবাসের কিছু অসাধু কর্মকর্তা দূর্নীতির সাথে সম্পৃক্ত। রাষ্ট্রদূত এসব দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের প্রশ্রয় দিয়ে প্রবাসীদের হয়রানিতে অংশীদার হয়েছেন। এজন্য বক্তারা রাষ্ট্রদূতের অবিলম্বে প্রত্যাহার দাবি করেন। ঘোষিত ১১ দফা দাবির মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- ইতালীতে বৈধতা পেতে আগামী ১০ জুলাইর মধ্যে অনিয়মিত অভিবাসীদের পাসপোর্ট সমস্যার সমাধান, ইতালীফেরত ১২৫ বাংলাদেশীকে অবিলম্বে ফিরিয়ে আনা, এপয়েন্টমেন্ট ছাড়া টোকেন ভিত্তিতে সেবা প্রদান,

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network