৩০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

 

সুপার ওভারে জয় দিল্লির

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

আইপিএল) দ্বিতীয় ম্যাচ নানাভাবে বিশ্লেষণ করবেন ক্রিকেটবোদ্ধারা। অনেকেই বলবেন একেই বলে টি-টোয়েন্টি খেলা।

কেউ কেউ হয়তো প্রথম ইনিংসের ১০ ওভার পর্যন্ত খেলা দেখে চ্যানেল পাল্টে ফেলেছেন।

আর তারাই হতাশায় ভুগেছেন। টান টান উত্তেজনাপূর্ণ এক শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ উপভোগ থেকে বঞ্চিত হলাম।

রোববার রাতে দুবাইয়ের ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দিল্লি বনাম পাঞ্জাব যুদ্ধ গিয়ে ঠেকে সুপার ওভার পর্যন্ত। সুপার ওভারে জিতে যায় দিল্লি ক্যাপিটালস।

এর আগে আরব আমিরাতের স্লো পিচে শুরুতে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।

তাদের বোলিং বলে প্রথম দিকে বিপর্যস্ত হলেও পরে ১৫৭ রান তুলতে সক্ষম হয় দিল্লি ক্যাপিটালস।

জবাবে ১৫৮ রানের টার্গেটে মেনে প্রীতি জিনতার দল ওই ১৫৭-তে এসেই থামে। ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে। আর সেই সুপার ওভারে সুপার ফ্লপ হয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।

ম্যাচের শুরুতে ব্যাটিংয়ে নেমে পাঞ্জাব বোলারদের আগ্রাসী বলে ধরাশায়ী হয় দিল্লি। শুরুতেই পর পর ৩ উইকেট পড়ে যায় দিল্লির।

ধাওয়ান শূন্য রানে রানআউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন। পৃথ্বি শ (৫) এবং শিমরন হেটমায়ার (৭) শিকার হন মোহাম্মদ সামির।

এর পর উইকেটের হাল ধরেন অধিনায়ক শ্রেয়াস আয়ার এবং রিষভ পন্থের জুটি। শ্রেয়াসের ৩৯ ও রিষভের ৩১ রানে স্কোরবোর্ড সমৃদ্ধ হয়। শেষ দিকে মার্কাস স্টোইনিজের ২১ বলে ৭ বাউন্ডারি ও তিনটি ছক্কার মারে ৫৩ রানের ঝড়ো ইনিংস দলকে সম্মানজনক স্কোরে পৌঁছে দেয়। মার্কাস রানআউট হয়ে যাওয়ায় নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৫৭ রান করতে সক্ষম হয় দিল্লি।

পাঞ্জাব বোলারদের মধ্যে মোহাম্মদ সামি চার ওভার বল করে মাত্র ১৫ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন, যা তার ক্যারিয়ারসেরা বোলিং। শেলডন কটরেল নেন ২ উইকেট।

১৫৭ রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই বেকায়দায় পড়ে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। ১০ ওভারে ৫ উইকেট খুইয়ে মাত্র ৫৫ রান জমা করে তারা।

করুন নায়ার ১, নিকোলাস পুরান ০, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ১ ও সরফরাজ খান ১২ রানে সাজঘরে ফেরেন।

অধিনায়ক লোকেশ রাহুল করেন ২১ রান। এবার উইকেটের হাল ধরেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল। ৪৫ বলে নিজের অর্ধশতরান পূর্ণ করে দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন। মোহিত শর্মার ১৮তম ওভারে ১৭ রান নেন মায়াঙ্ক।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য দরকার ছিল ১৩ রানের। প্রথম তিন বলে চলে আসে ১২ রান। পরের বলে কোনো রান হয় না। শেষ ২ বলে ১ রানের দরকার ছিল। কিন্তু পর পর দুই বলে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা মায়াঙ্ক এবং ক্রিস জর্ডনকে ফিরিয়ে দিল্লিকে ম্যাচে ফেরান স্টোইনিজ। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ গড়ায় সুপার ওভারে।

সুপার ওভারে প্রথমে ব্যাট করতে এসে মাত্র ২ রান তোলে পাঞ্জাব। কাগিসো রাবাদার প্রথম বলে রাহুল ২ রান নিলেও পরের ডেলিভারিতে ডিপ স্কোয়ারে ক্যাচ তুলে আউট হন রাহুল। পরের ডেলিভারিতে নিকোলাস পুরানের স্টাম্প ভেঙে দেন রাবাদা। ফলে ৩ রানের টার্গেট দিতে পারে পাঞ্জাব।

আর মাত্র তিন রান তাড়া করতে নেমে সহজেই জিতে যায় দিল্লি। মোহাম্মদ সামির দ্বিতীয় বল ওয়াইড হয়। পরের বলে ২ রান নিয়ে দলকে জিতিয়ে দেন রিষভ পন্থ।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Website Design and Developed By Engineer BD Network