২৫শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

বাবুগঞ্জে শতভাগ ভাতা প্রাপ্তির আবেদন করেছে ৬ হাজার ৭ শ ৮৮ জন মানুষ

আপডেট: অক্টোবর ১, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

সাইফুল ইসলাম বাবুগঞ্জ(বরিশাল)প্রতিনিধি ঃ
বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলায় শতভাগ বয়স্ক, বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্ত নারীর জন্য সরকার কর্তৃক ভাতার জন্য আবেদন জমা পড়েছে ৬ হাজার ৭ শ ৮৮ জনের। এর মধ্যে ভাতা প্রাপ্তির যোগ্য বয়স্ক ব্যক্তির সংখ্যা ৩ হাজার ৪ শ ৮৯ জন। অপরদিকে বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতা মহিলার সংখ্যা ৩ হাজার ২ শ ৯৯ জন।

উপজেলা সমাজসেবা অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় ৬ টি ইউনিয়নের মধ্যে ১নং জাহাঙ্গীর নগর ইউনিয়ন থেকে বয়স্ক ভাতার আবেদন জমা পড়েছে ৫৬৪ ও বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতার ভাতার আবেদন ৩৮৯ জন। ২নং কেদারপুর ইউনিয়ন থেকে বয়স্ক ভাতার আবেদন জমা পড়েছে ৪৮২ ও বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতার ভাতার আবেদন ৪৭৫ জন। ৩ নং দেহেরগতি ইউনিয়ন থেকে বয়স্ক ভাতার আবেদন জমা পড়েছে ৫১৮ ও বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতার ভাতার আবেদন ৫৫৫ জন। ৪নং চাঁদপাশা ইউনিয়ন থেকে বয়স্ক ভাতার আবেদন জমা পড়েছে ৮৭৬ ও বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতার ভাতার আবেদন ৭৮৩ জন। ৫নং রহমতপুর ইউনিয়ন থেকে বয়স্ক ভাতার আবেদন জমা পড়েছে ৩৮৭ ও বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতার ভাতার আবেদন ৪৯৪ জন। ৬নং মাধবপাশা
ইউনিয়ন থেকে বয়স্ক ভাতার আবেদন জমা পড়েছে ৬৬২ ও বিধবা বা স্বামী নিগৃহীতার ভাতার আবেদন ৬০৩ জন।

এর আগে গত আগস্ট হতে ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেদন জমা নেয়ার তারিখ নির্ধারণ ছিল। আবেদনে উল্লেখ ছিল প্রার্থীদের সংশ্লিষ্ট এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে, জাতীয় পরিচয় নাম্বার থাকতে হবে, বয়স পুরুষের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৬৫ বছর এবং মহিলাদের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৬২ বছর হতে হবে, প্রার্থীর বার্ষিক গড় আয় ১০ হাজার টাকা হতে হবে।

যারা সরকারি কর্মচারী পেনশনভোগী, দুস্থ মহিলা হিসেবে ভিজিডি কার্ডধারী, অন্য কোনোভাবে নিয়মিত সরকারী অনুদান বা ভাতা প্রাপ্ত, কোনো বেসরকারি সংস্থা বা সমাজকল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠান হতে নিয়মিতভাবে আর্থিক অনুদান বা ভাতা প্রাপ্ত হলে তারা ভাতা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অযোগ্য বলে বিবেচিত হবে। বিধবা বা স্বামী পরিত্যক্ত ভাতার জন্য বিধবা হতে হবে, বয়স অবশ্যই ১৮ বছরের উপর হতে হবে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, সরকার শতভাগ বয়স্ক-বিধবা ভাতার উদ্যোগ নেওয়ায় আমরা খুবই খুশি। যাদের বয়স হয়েছে তাঁরা সবাই এই ভাতার জন্য আবেদন করেছে। এছাড়া, বিধবারাও আবেদন করেছে। সরকারীভাবে যাচাই-বাছাই করে তালিকা প্রকাশ করা হবে। কাজটি খুব স্বচ্ছতার সাথেই হচ্ছে বলে জানান স্থানীয় বাসিন্দারা।

এ বিষয়ে উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মো. মাহমুল হাসিব বলেন, বয়স্ক, বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্ত ভাতা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে কোনো টাকা পয়সা লাগে না। কাউকে কোন টাকা দিবেন না। জমাকৃত আবেদন আমরা যাচাই-বাছাই করে যোগ্য প্রার্থীকে ভাতার কার্ড প্রদান করা হবে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
   
Website Design and Developed By Engineer BD Network