২৩শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

কোটালীপাড়ায় পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা, চিকিৎসার জন্য দেয়া হলো ১০ হাজার টাকা

আপডেট: ডিসেম্বর ১, ২০২৩

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

স্টাফ রিপোর্টার, গোপালগঞ্জ : গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় পঞ্চম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে ধর্ষনের পর মামলার না করার শর্ত দিয়ে চিকিৎসার জন্য মাত্র ১০ হাজার টাকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

অভিযুক্ত যুবক অপু সরকারকে (৩২) শালিস বিচারের মাধ্যেম বাঁচাতে ওই টাকা দেয়া হয়েছে। অভিযুক্ত অপু সরকার মুশুরিয়া গ্রামের মৃত রাজেন্দ্র সরকারের ছেলে।

আর এমন ঘটনা ঘটেছে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার রামশীল ইউনিয়নের মুশুরিয়া গ্রামে। এ ঘটনায় ভূক্তভোগী ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে কোটালীপাড়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ভূক্তভোগী মেয়ের বাবা জানান, গত ৯ নভেম্বর আমার একটি অপারেশন হয় এই কারনে আমি স্ত্রীসহ হাসপাতালে ছিলাম। তখন আমার দুইটি মেয়ে বাড়িতে ছিল। এই সুযোগে পাশের বাড়ির বখাটে অপু সরকার জোর করে আমার ঘরে ঢুকে আমার মেয়ের উপরে পার্শ্ববিক অত্যাচার করে। এরপর আমার মেয়েটা অনেক বেশি অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে প্রথমে কোটালীপাড়া ও আগৈলঝাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরবর্তীতে বরিশাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করিয়েছি। এখনো মেয়েটা পুরোপুরি সুস্থ হয়নি।

তিনি আরো বলেন, এই অপকর্মের কথা আমি স্থানীয় মাতবরদের কাছে জানালে তারা আমাকে মামলা করতে নিষেধ করে ও সালিশের মাধ্যমে বিচার দিবে বলে আশ্বাস দেয়। কিন্তু তারা এখনো কোন সমাধান না দিয়ে মেয়ের চিকিসা বাদদ মাত্র ১০ হাজার টাকা দেন। তাই শেষ পর্যন্ত আমি বিচারের আশায় ২৭ নভেম্বর কোটালীপাড়া থানায় অভিযোগ করেছি।

তবে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একজন সালিশদার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনার পরে মেয়টার চিকিৎসার বাবদ ১০ হাজার টাকা তার বাবাকে দেয়া হয়েছে। আমরা বিষয়টিকে সমাধানের চেষ্টা করছি।

কোটালীপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: জিল্লুর রহমান জানান, স্কুলছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগটি তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে সত্যতা পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
     
Website Design and Developed By Engineer BD Network