১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

শিরোনাম
তেলবাহী লড়ি উল্টে গিয়ে আগুন লেগে এক জনের মৃত্যু। ভূমি বিষয়ক তথ্যাদি স্কুলের পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করার উদ্যোগ গ্রহণ করো হয়েছে-ভূমিমন্ত্রী মির্জা ফকরুলরা তারেক জিয়ার নির্দেশে জনগনের সাথে প্রতারনা ও তামশা করছে-আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিগ বার্ড ইন কেইজ: ২৫ শে মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধুর গ্রেফতার  ঢাবি ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে ১ কোটি টাকার বৃত্তি ফান্ড গঠিত হাইকোর্টের রায়ে ডিন পদে নিয়োগ পেলেন যবিপ্রবির ড. শিরিন জয় সেট সেন্টার’ থেকে মিলবে প্রশিক্ষণ, বাড়বে কর্মসংস্থান: পীরগঞ্জে স্পীকার বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস আগামীকাল টুঙ্গিপাড়ায় যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী, সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন বিশিষ্ট রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী সাদি মোহম্মদ আর নেই

“যৌন হয়রানিতে অভিযুক্ত শিক্ষককে অব্যাহতির দাবি ঢাবি শিক্ষার্থীদের”

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২৪

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

ঢাবি প্রতিনিধি:
নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে তার বিভাগের এক নারী শিক্ষার্থীর আনীত যৌন নিপীড়নের অভিযোগের সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার না হওয়া পর্যন্ত সকল একাডেমিক কার্যক্রম বয়কট করেছেন বিভাগের  শিক্ষার্থীরা। নাদির জুনাইদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক।

গত শনিবার অধ্যাপক নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে  প্রক্টর বরাবর বিভাগের  এক নারী শিক্ষার্থী লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পর থেকেই বিভাগের শিক্ষার্থীদের মধ্যে তৈরি হয়েছে বিরূপ প্রতিক্রিয়া।

রবিবার (১১ ফেব্রুয়ারি)  সকাল  থেকে  বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড, ব্যানার ও পোস্টার হাতে বিভাগের করিডোরে অবস্থান নেন তারা। এরপর সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে উপাচার্যের কার্যালয় হয়ে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ সমাবেশ করেন তারা।
বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে শিক্ষার্থীরা তিন দফা দাবি জানান: অধ্যাপক নাদির জুনাইদের বিরুদ্ধে আনা যৌন নিপীড়নের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে দ্রুততম সময়ের মধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন করা; যৌন নিপীড়ককে দ্রুততম সময়ের মধ্যে শাস্তির আওতায় আনা এবং তদন্ত চলাকালে বা অভিযোগ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত সব একাডেমিক কার্যক্রম থেকে অভিযুক্ত শিক্ষককে বিরত রাখা।

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আবুল মনসুর আহমেদ ও রোবায়েত ফেরদৌস পরে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলেন এবং দাবি নিয়ে উপাচার্যের কাছে যাওয়ার কথা বলেন। কেবল আশ্বাস দিয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন থামিয়ে দেওয়া যাবে না জানিয়ে তারা বিক্ষোভ কর্মসূচি চালিয়ে যান।

৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী রাহি নায়াব বলেন,নাদির জুনাইদের যৌন হয়রানির বিষয়টি মিডিয়ার মাধ্যমে বর্তমানে ভাইরাল হলেও এটি তিনি আরও অনেক আগে থেকেই করে আসছিলেন। প্রতিটি ব্যাচেরই ২-৩ জন সুন্দরী নারী শিক্ষার্থীকে তিনি টার্গেট করে রাখতেন। এবং পরবর্তীতে বিভিন্নভাবে হয়রানি করতেন। প্রতি ব্যাচেই যদি দুই একজন শিক্ষার্থী থাকেন, তাহলে ২৩-২৪ বছরের শিক্ষকতা জীবনে তিনি কত নারী শিক্ষার্থীকে ইতিমধ্যে হয়রানি করে এসেছেন।  আজ দেয়ালে আমাদের পিঠ ঠেকে গিয়েছে। আমাদের বোনদের সাথে যে যৌন নিপীড়ন হয়েছে, আমরা তার বিচার চাই।  তদন্ত কমিটি করার আশ্বাসে এবার আর কাজ হবে না। আমরা চাই সঠিক তদন্তের পর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি।

উপোরোক্ত তথ্য ছাড়াও দ্য ডেইলি ক্যাম্পাস থেকে আরো জানা যায়, ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী নাওয়ার সালসাবিল দুর্দানা বলেন, প্রথম সেমিস্টারেই আমরা তাকে পাই। এই পর্যন্ত তিনটা সেমিস্টারে তিনি আছেন। এটা বলার পরই আপনারা বুঝতে পারছেন আমরা কতটা বেশি মানসিক ট্রমায় ছিলাম। সেটাও হয়তো ক্ষমার যোগ্য কিন্তু প্রত্যেকটা ব্যাচ থেকেই তিনি কয়েকজনকে টার্গেট করেন এবং নাম্বার দেওয়ার ক্ষেত্রে তিনি মেধা যাচাই করেন না, যাচাই করেন হোয়াটসঅ্যাপের চ্যাট এবং ফোনের আলাপ।যেকোনো টার্ম পেপার জমা দিতে হলে আমাকে তার পছন্দ হবে কি হবে না সেটা নিয়ে ২ঘন্টা ফোনে কথা বলতে হবে। পরবর্তীতে তিন বলবেন আমার কথা বলা কম হয়েছে তাই আমাকে তিনি ১০ এ দুই বা তিন দেবেন। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা যেন নিজেদের ঈশ্বর মনে না করেন এবং নাম্বার যেন মেধার ভিত্তিতে যাচাই হয়। 

চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সামদানি প্রত্যয় বলেন, ওনার বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগের বিষয়টি সবাই জানতো। ভীতির সংস্কৃতি চর্চার কারণে এতোদিন কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায়নি। একজন ভিক্টিম যখন সাহস করে প্রতিবাদ করেছে তখন আমরা চুপ থাকতে পারি না।

সার্বিক বিষয়ে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা  বিভাগের চেয়ারম্যান ও সিন্ডিকেট সদস্য প্রফেসর ড. আবুল মনসুর আহাম্মদ বলেন, গতকাল প্রক্টরকে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পর আজ শনিবার শিক্ষার্থীরা আমাকে একটি স্মারকলিপি দেন৷ পরে বিষয়টি নিয়ে আমি ও বিভাগের দুজন শিক্ষক নিয়ে উপাচার্যের সঙ্গে তাঁর কার্যালয়ে সভা করেছি৷ প্রক্টর সভায় উপস্থিত ছিলেন। উপাচার্য সেখানে শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিদেরও ডেকে নিয়েছেন৷ উপাচার্য শিক্ষার্থীদের আশ্বস্থ করেছেন যে এ বিষয়ে দ্রুত একটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে৷

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
     
Website Design and Developed By Engineer BD Network